রাজাদের গল্প-১০ চীনা রাজার ১০ ভিন্ন কাহিনী


800px-Forbidden_City_Beijing_Shenwumen_Gateকিন রাজবংশের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত (খ্রিস্টপূর্ব ২১২ – খ্রিস্টাব্দ ১৯১২) প্রায় শতাধিক রাজা চীন কে শাসন করেন । তাঁদের অধিকাংশই ছিলেন চাইনিজ । কিছু ছিলেন মঙ্গোলীয় এবং মাঞ্চু । তাঁদের কেউ কেউ জোর পূর্বক সিংহাসন দখল করেছিলেন । তবে অধিকাংশই সিংহাসন পেয়েছিলেন উত্তোরাধিকার সূত্রে । তাঁরা চীনকে আমূল পরিবর্তন করেছিলেন । তাদের অনেকেই ছিলেন বুদ্ধিমান এবং মেধাবী । আবার কেউ কেউ ছিলেন নিষ্ঠুর এবং অলস ।

১। তোঘন তেমুর

তিনি ১২৭১ সালে সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হন। মঙ্গোল শাসিত ইউয়ান রাজবংশ প্রায় পুরো শতাব্দী চীনকে শাসন করে । যদিও মঙ্গোলরা কিছু চৈনিক সংস্কৃতি গ্রহণ করেছিল কিন্তু সেগুলো তাদের পূর্ব পুরুষ থেকে ভিন্ন কিছু ছিল না । চার আমলের সমাজতান্ত্রিক যাজক শাসনের পর মঙ্গোলরা রাজ্যশাসনে আসে । এর মাঝে রাজ্যশাসন করেছে পশ্চিম এশিয় মুসলমানেরা ,উত্তর এবং দক্ষিনের চীনারা । মঙ্গোলরা তাদের সংস্কৃতিকে ভুলে যেতে চাইতো না । বরং তারা চীনাদের সাথে একটা পার্থক্য বজায় রাখতো এবং বিভিন্ন ধরনের আইন প্রনয়ন করতো । এই সকল আইনের কারনে চীনারা হতাশ হয়ে পড়ে এবং মঙ্গোল শাসন ব্যাবস্থা অজনপ্রিয় হয়ে পড়ে । ইউয়ান শাসকেরা অযোগ্য এবং অনুপুযুক্ত হিসাবে বিবেচিত হয় ।

মাত্র ১৩ বছর বয়সে তেঘন তৈমুর সিংহাসনে আরোহন করেন । তিনি যৌনতা এবং বুদ্ধিস্ট স্পিরিচুয়ালিজমে আকৃষ্ট ছিলেন । তার প্রজারা যখন প্লেগ এবং খাবারের অভাবে মারা যাচ্ছিল তখন তৈমুর অনেকগুলো পতিতালয় তৈরি করেছিলেন । যখন চীনে বিপ্লব শুরু হলো তখন তৈমুর এবং তার মন্ত্রী মিলে এক অদ্ভুত সিদ্ধান্ত নিলেন । যাদের নামের শেষে য্যাং ,ওয়াং লিউ , লি এবং হাও থাকবে তাদেরকে গনহারে মেরে ফেলবেন । যদি পরিকল্পনাটি বাস্তবায়িত হতো তাহলে শতকরা ৯০ ভাগ জনসংখ্যা মারা পড়তো । ১৩৬৮ সালে বিপ্লবি চাইনিজ আর্মি প্রায় পুরো দেশ দখল করে ফেলে এবং তৈমুর মঙ্গোলিয়া পালিয়ে যান । ১৩৭০ সালে তিনি সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন ।

২। হং উ

চাইনিজ আর্মির বিপ্লবি নেতা হু জিয়াং হ্যাং যিনি পরবর্তীতে হং উ নাম ধারন করে সিংহাসনে আরোহন করেন এবং মিং রাজবংশের সুচনা করেন । ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি খুবই পাগলাটে ,নিষ্ঠুর এবং রুড় স্বভাবের মানুষ ছিলেন । হং উ প্রথম জীবনে ছিলেন একজন বৌদ্ধ ভিক্ষু । মাত্র ১৬ বছর বয়সে মা বাবাকে হারিয়ে তিনি সন্ন্যাস গ্রহণ করেন । ১৩৫২ সালে তিনি চাইনিজ আর্মিতে যোগদান করেন এবং খুব তাড়াতাড়ি পদোন্নতি পেয়ে চাইনিজ আর্মির শীর্ষ পর্যায়ের নেতা হন । ১৩৬৮ সালে তিনি তৎকালীন দাইদু , বর্তমান বেইজিং দখল করেন ।

ক্ষমতায় এসে হং উ মঙ্গোলীয় প্রথা সংস্কৃতি দূরীকরণে উঠে পড়ে লাগেন । ১৩৬৯ সালে তার নির্দেশে চীনে অনেকগুলো পাবলিক স্কুল গড়ে উঠে যেখানে ছাত্রদের চীনা লিপি পড়ানো হতো । তিনি কর পদ্ধতিকে পুনর্গঠন করেন যা তার মৃত্যুর পূর্বে ১৩৯৮ সাল পর্যন্ত বহাল ছিল ।

এতকিছুর পরেও সম্রাট  হং উ তার কিছু নিষ্ঠুর এবং পাগলাটে আচরণের জন্য সমালোচিত হয়েছেন । যে কেউ তার সমালোচনা করতো তাকে উন্মুক্ত করে আদালতে হাজির করা হতো এবং মাথা ন্যাড়া করে দেয়া হতো । সম্রাট হং উ তার আমলাদের অবিশ্বাস করতেন এবং তাঁকে উৎখাতের যে কোন ষড়যন্ত্র নিষ্ঠুরভাবে মোকাবেলা করতেন । একবার এক আমলার ষড়যন্ত্র তাঁর কাছে ফাঁস হয়ে যায় । তিনি ওই ব্যাক্তির মাথা কর্তন করেন এবং তার পরিবারের সকলকে হত্যা করেন ।

৩। ওয়াং ম্যাং

চীনের প্রথম সমাজতান্ত্রিক সম্রাট যিনি ৯ অব্দে জিং রাজবংশের সুচনা করেন । তিনি একজন উচ্চাকাঙ্ক্ষী ,সমাজ সংস্কারক ছিলেন এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজের জন্য স্মরণীয় হয়ে আছেন । তিনি যখন ক্ষমতায় আসেন তখন চীনের বেশিরভাগ মানুষ দুর্ভিক্ষে পতিত হয়েছিল । তিনি চীনের ধনী ব্যাবসায়ীদেরকে নির্দেশ দিলেন তাদের অতিরিক্ত সম্পদগুলো জনসাধারণের মাঝে বণ্টন করে দেয়ার জন্য । তিনি দাস কেনা বেচা বন্ধ করেন । স্বভাবতই চীনের ব্যবসায়ী এবং উচু শ্রেণীর মানুষেরা তার কাজে আগ্রহী হয়নি     । বরং তাদের মাঝে অসন্তোষ বাড়ছিল । এক্সময় সেটা গৃহযুদ্ধে রূপ নেয় ।২৩ অব্দে ওয়াং বুঝতে পারেন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনের বাইরে চলে গেছে । বিদ্রোহীরা রাজধানীর দিকে অগ্রসর হতে থাকে । ৭ অক্টোবর তারা ওয়াং এর প্রাসাদ দখল করে নেয় । তাকে আটক করা হয় এবং পরবর্তীতে  মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় ।

৪। জুয়ান জং

তাং রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা । চীনকে শাসন করেন ৪৩ বছর । তাঁর শাসনামলের কিছু সময় খারাপ গেলেও জুয়ান জং এর শাসনামলকে চীনের ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে বিবেচনা করা হয় । ৭১২ সালে জুয়ান জং সিংহাসনে বসেন । তিনি ৭৫৫ সাল পর্যন্ত চীনকে শাসন করেন । জুয়ান জং আমলা তন্ত্রের বিলোপ ঘটান এবং যোদ্ধাদেরকে সেনাবাহিনীর নেতৃত্বে নিয়ে আসেন । পরের বছর গুলোতে জুয়ান জং সরকারী কাজে মনোযোগ হারিয়ে ফেলেন । তিনি অধিকাংশ সময় ইয়াং গুফেই এর সাথে অভিসারে যেতেন । গুফেই ছিলেন তাঁরই পুত্রবধূ । তরুণী গুফেই সম্রাটের ক্ষমতার সুযোগ নিয়েছিলেন । প্রায়ই তিনি নিজের আত্মীয় স্বজনদের সম্রাটের ক্ষমতা ব্যবহার করে সাহায্য করতেন । এক সময় ইয়াং গুফেই প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেলেন । তার দত্তক পুত্র আন লুসান হয়ে গেলেন সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ।

৭৫৫ সালে আন লুসান এবং ইয়াং গুজং মিলে তাং সরকারের বিরুদ্ধে একটি বিদ্রোহের সূচনা করেন । শহর অবরুদ্ধ করতে শুরু করলে জুয়ান জং এবং ইয়াং গুফেই পালিয়ে যান । একটা নির্জন গ্রামে তারা সেনাবাহিনীর হাতে আটক হন । ইয়াং গুফেই এর বিরুদ্ধে আন লুসান কে বিদ্রোহে উৎসাহিত করার অভিযোগ আনা হয় । তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয় । প্রিয়তমার মৃত্যুতে সম্রাট জুয়ান জং হতাশ হয়ে পড়েন । এর পরে কি হয়েছিল সেটা আর ইতিহাসে বলা নেই ।

৫। জিয়ান ওয়েন

জিয়ান ওয়েন ছিলেন মিং রাজবংশের ২য় সম্রাট । হং উ এর মৃত্যুর পর ১৩৯৮ সালে তিনি শাসন ক্ষমতায় আসেন । তাঁর চাচা ঝু ডি ব্যাপারটি মেনে নিতে পারেননি । ঝু ডি ছিলেন একজন সফল সেনা নায়ক । চীন থেকে মঙ্গোলদের বিতারনে তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল । ঝু ডি একটি বিদ্রোহী বাহিনী গঠন করে চীনের উত্তরাংশ দখল করে ফেলেন । প্রায় ৩ বছর জিয়ান ওয়েনের সাথে যুদ্ধ করার পর তিনি ১৪০২ সালে নাঞ্জিং শহরটি দখল করেন । বিদ্রোহের সময় জিয়ান ওয়েনের প্রাসাদটি ধ্বংস হয়ে যায় এবং পরবর্তীতে কেউ জিয়ান ওয়েনের দেখা পাননি । ঝু ডি দাবী করেন তার ভাতিজা আগুনে পুড়ে মারা গেছেন ।এই ঘটনার চার দিন পর ঝু ডি নিজেকে চীনের সম্রাট হিসাবে দাবী করেন । যদিও অনেকেই বিশ্বাস করতো জিয়ান জু আগুনে পুড়ে মারা যাননি । বরং চীন থেকে পালিয়ে গেছেন । ঝু ডি তার পূর্বপুরুষদের ইতিহাস মুছে ফেলার চেষ্টা করেন এবং হং উ র রাজত্বে তার অবদান তুলে ধরে নতুন ইতিহাস রচনার চেষ্টা করেন । তবে সম্রাট জিয়ান জুর আকস্মিক অন্তর্ধান ইতিহাসের পাতায় এখনো রহস্য হয়েই বেঁচে আছে ।

৬। ঝেং ডি

তাঁর অন্য নাম ছিল উ ঝং । সম্রাট উ ঝং ছিলেন যৌনতায় আসক্ত । তিনি বহু নারীকে অপহরণ এবং ধর্ষণ করেছেন ।কথিত আছে ,সম্রাট উ ঝং একবার যুদ্ধ শেষ করে ফেরার পথে এতো নারীকে ধর্ষণ করেছিলেন যে তার হিসাব নেই । অনেক ইতিহাসবিদ বলেন যে সেই সময়ে তার আতংক এতোটাই চরমে উঠেছিল যে কোন পরিবার তাদের মেয়েকে যে কোন ছেলে দেখেই বিয়ে দিয়ে দিতো । উ ঝং এতটাই নারী আসক্ত ছিলেন যে তার প্রাসাদে আর মেয়েদের জায়গা হচ্ছিল না । তিনি লিওপারড প্যালেস নামে নতুন একটা প্রাসাদ নির্মাণ করেন । দিনের বেশির ভাগ সময় সেখানেই কাটাতেন তিনি । এমনও গুজব শোনা যায় ,সম্রাট উ ঝং তার নিজের দাস ওয়াং উই এর সাথেও যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন । ১৫২০ সালের এক শরতে , নৌকা থেকে পড়ে গিয়ে সম্রাট উ ঝন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর তিনি আর সুস্থ হন নি । এবং এই অবস্থাতেই লিওপারড প্যালেসে মৃত্যুবরণ করেন ।

৭। জিয়া জিং

সম্রাট জিয়া জিং ১৫২১ থেকে ১৫৬৭ সাল পর্যন্ত চীন কে শাসন করেন । তার সময়ে চীন বেশ ভালো উন্নতি করে ।জিয়া জিং তার উপপত্নী দ্বারা খুন হতে বসেছিলেন । নভেম্বর ২৭। জিয়া জিং তার এক উপপত্নীর ঘরে ঘুমচ্ছিলেন । এমন সময় তার ১৮ জন সেবাদাসী সেখানে প্রবেশ করে এবং গলায় ফিতা বেঁধে হত্যার চেষ্টা করে । সেই সময়ে ভাগ্য জোরে সম্রাট বেঁচে যান ,কারন ফিতার জোর যথেষ্ট ছিল না । মৃত্যুর মুখ থেকে বেঁচে ফিরে আসার পর জিয়া জিং প্রাসাদ ত্যাগ করেন এবং লিওপারড প্যালেসের কাছে নিজের ব্যাক্তিগত প্রাসাদে চলে যান । জীবনের বাকি ২৫ বছর তিনি কাজ কর্ম থেকে দূরে থাকেন । তিনি এক প্রকারের “”যাদুকরী “ পানিয় পান করতেন যেটা বডি ফ্লুইড থেকে তৈরি হয় ।

৮। উ জিটিয়ান

চীনের ২ হাজার বছরের ইতিহাসে একমাত্র সম্রাজ্ঞী যিনি চীনকে শাসন করেছেন নিজের নামের পাশে কোন উপাধি না নিয়েই । তা শাসনামলে চীন স্থিতিশীল ছিল । যদিও তিনি অনেক নিষ্ঠুর একজন সম্রাজ্ঞী ছিলেন কিন্তু কিছু ভালো কাজের জন্য ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে আছে । উ জিটিয়ান ছিলেন কূটবুদ্ধিসম্পন্ন মহিলা । তিনি ৬৫৫ সালে নিজের ৭ দিন বয়সী ছেলেকে খুন করেন এবং সেই খুনের দায় চাপান তৎকালীন সম্রাট গাও জং এর স্ত্রীর উপর । ঊ জিটিয়ান সারাদেশে “” সাজেশন বক্স “’ এর প্রচলন করেন যেখানে জন সাধারন সকল বিষয়েই মতামত প্রদান করতে পারতো । তার একটা গোপন পুলিশ বাহিনী ছিল যেটা দিয়ে তিনি শত্রুদের দমন করতেন । ৭০৫ সালে তিনি সিংহাসন থেকে তার এক পুত্রের মাধ্যমে অপসারিত হন ।

৯। তাইচ্যাং

মিং রাজবংশের সর্বশেষ রাজা  যিনি মাত্র ১ মাসের কিছু বেশি সময় শাসন করেছেন । ১৬২০ সালের ২৮ অগাস্ট তিনি  খমতায়াসেন । এর কিছুদিন পরেই তাইচ্যাং অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হন । তিনি চলা ফেরার শক্তি হারিয়ে ফেলেন । তিনি ঘুমোতে পারতেন না। তাইচ্যাং আরোগ্য লাভ করতে অস্থির হয়ে উঠলেন । লি কেসাও নামে এক লোক তাকে বিশেষ “”লাল পিল “” গ্রহনের পরামর্শ দেন । ব্যাকুল সম্রাট না বুঝেই সেটা গ্রহণ করেন । অবাক হলেও সত্যি যে তিনি খুব দ্রুতই আরোগ্য লাভ করতে থাকেন । তার ঘুমের সমস্যা দূর হলো । বিকেল বেলা তিনি আবার অসুস্থ হয়ে গেলেন এবং আবার একটি পিল গ্রহন করেন । এইবার পিল কাজ করলো না । তাইচ্যাং সকালের মধ্যেই মারা গেলেন ।

মজার ব্যাপার হলো যিনি তাকে পিল গ্রহণ করতে বলেছিলেন সেই লি কেসাও কোন ডাক্তার কবিরাজ ছিলেন না । তার কোন চিকিৎসা বিষয়ক জ্ঞানও ছিল না । তথাপি সেই পিলের কারনেই সম্রাট মারা গেছেন এমন কোন প্রমাণও পাওয়া যায় না । তবে অনেকেই লি কেসাও কে রাজার মৃত্যুর জন্য দায়ী করে থাকেন ।

১০। জুয়ান টং

চীনের সর্বশেষ সম্রাট। তাঁর আসল নাম হেনরী পুয়ি । মাত্র ৩ বছর বয়সে তিনি সিংহাসনের উত্তরাধিকার লাভ করেন । ১৯১১ সালে গণতান্ত্রিক বিপ্লবের পর চীন সমাজতান্ত্রিক দেশ হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে এবং রাজতন্ত্রের বিলোপ ঘটে। ফলে পুয়ি তার ক্ষমতা হারানক।১৯২৪ সালে তাকে জোর পূর্বক তিয়ানজিনে পুনর্বাসন করা হয় । তিয়ানজিনের দুটো অংশ ছিলস। পুয়ি জাপানের অংশে অবস্থান করতেন। এবং ১৯৩২ পর্যন্ত তিনি সেখানেই অবস্থান করেন । ১৯৩২ সালে জাপান মাঞ্ছুরিয়ার নিয়ন্ত্রণ পায় । সেখানে তারা পুয়িকে সম্রাট হওয়ার আমন্ত্রন জানায় ।

২য় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর সোভিয়েত ইউনিওন তাকে আটক করে এবং ৫ বছরের জন্য কারাগারে পাঠায় । তাঁকে যুদ্ধাপরাধী হিসাবে চিহ্নিত করে আটক রাখা হয় । ১৯৫০ সালে সোভিয়েত ইউনিউন তাকে চীনের কাছে ফেরত দেয়। প্রায় ১ দশক তিনি কারাগারে অবস্থান করেন । কারাগার থেকে বের হওয়ার পর হেনরী পুয়ি একজন মালি হিসাবে জীবিকা নির্বাহ করতে থাকেন । ১৯৬৭ সালে ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে তিনি মারা যান ।

লেখক সম্পর্কেঃ আরাফাত আব্দুল্লাহ । লেখালেখির সাথে যুক্ত আছি । কিছু অনুবাদের কাজ করেছি । প্রিয় কাজ সমসাময়িক বিষয়ের উপর লেখালেখি করা ।

কমেন্ট করুন

What's Your Reaction?

hate hate
0
hate
confused confused
1
confused
fail fail
0
fail
fun fun
1
fun
geeky geeky
1
geeky
love love
1
love
lol lol
0
lol
omg omg
0
omg
win win
0
win
টিম বাংলাহাব
এবার পু্রো পৃথিবী বাংলায়- এ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে বাংলাহাব.নেট এর যাত্রা শুরু হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের ভিন্ন স্বাদের সব তথ্যকে বাংলায় পাঠক-পাঠিকাদের সামনে তুলে ধরাই আমাদের উদ্দেশ্য।

লগইন করুন

আপনার একাউন্টে প্রবেশ করুন।

পাসওয়ার্ড রিসেট করুন!

পাসওয়ার্ড রিসেট করুন!

সাইন আপ করুন

আমাদের পরিবারের সদস্য হোন।

Choose A Format
Personality quiz
Series of questions that intends to reveal something about the personality
Trivia quiz
Series of questions with right and wrong answers that intends to check knowledge
Poll
Voting to make decisions or determine opinions
Story
Formatted Text with Embeds and Visuals
List
The Classic Internet Listicles
Meme
Upload your own images to make custom memes
Video
Youtube, Vimeo or Vine Embeds
Audio
Soundcloud or Mixcloud Embeds
Image
Photo or GIF
Gif
GIF format