এবার পুরো পৃথিবী বাংলায়

ডেমনলজি বা পিশাচবিদ্যা পর্ব-২ (অ্যাবাডন ও অ্যাবেজেথিবো)

0 52

- Advertisement -

অনেকেরই জ্বীন-ভুত-পরী নিয়ে অনেক মাথা ব্যাথা। তারা কি সত্য, নাকি মিথ্যা, তারা শুধুই কি মিথ, পুরোটাই গুঁজব নাকি আসলেই ফ্যাক্ট? না, আমি কোন জ্বীন-ভুত বিশারদ নই। তবে ডেমন নিয়ে মনের কোনে একটু তরল জায়গা বরাবরই ছিল, আম্মু-আব্বু, দাদী-নানীদের মুখে সেই ছোটবেলা থেকেই এগুলো শুনে ঘুমিয়েছি কি না তাই। সেই তরল জায়গায় কবে কবে যে ডেমনের শেওলা জমে গেছে জানিনা। সেখান থেকেই এদের উপরে একটু পড়াশুনা করতে শুরু করেছিলাম আর কি। আর যেহেতু, বাংলা হাবের মত ওয়াইড প্ল্যাটফর্মের সাথে যুক্ত যখন হয়েই গেছি, ভাবলাম যা পড়ছি, সবার সাথে শেয়ার করলে দোষ কোথায়। তাই সিরিজ আকারে শুরু করলাম ডেমনলজি। সাথে থাকুন, আশা করি খারাপ লাগবে না। আর যদি সিরিজটি পছন্দ হয় বা না হয়, নিচে কমেন্টে আপনার অনুভূতি জানাতে ভুলবেন না। আর শেয়ার করাটা কিন্তু বাঞ্ছনীয়।

২য় সিরিজ শুরু করলাম, মৃত্যুর দূত অ্যাবাডন কে দিয়ে।

Abaddon (Apollyon) কে বলা হয় মৃত্যু, ধ্বংস ও পাতালপুরীর দূত। হিব্রু ভাষায় অ্যাবাডন মানে ধ্বংস বা ধ্বংসের স্থান। আর গ্রীক ভাষায় তাকে ডাকা হয় অ্যাপোলিয়ন।

কালো জাদুর দুনিয়ায় অ্যাবাডনকে Satan ও Samael এর সমকক্ষও ধরা হয়। কালো জাদুতে অন্যের ক্ষতি করার জন্য কনজুরিং স্পেলের সময় এর নাম স্মরন করা হয়। অ্যাবাডনকে বলা হয় ডেমন, এরিন বা ফিউরি এর সেভেন হায়াক্রেসির প্রিন্স, যারা সকল অশুভ, ধ্বংস, যুদ্ধ-বিবাদ নিয়ন্ত্রন করে।

তবে আসলে অ্যাবাডন কোন এঞ্জেল নয়, বরং এটা একটা স্থান। ইহুদী ধর্মিয় পুস্তক ও ওল্ড টেস্টামেন্টে অ্যাবাডনকে দোজখের Gehenna (নরকুন্ড) অংশের এর একটা বিশেষ স্থান হিসেবে লেখা হয়েছে। ওল্ড টেস্টামেন্টে এই নামটি ছয় বার উল্লেখ করা হয়েছে। Proverbs ১৫:১১ ও ২৭:২০ অনুচ্ছেদে এটাকে পাতালপুরীর একটা শহর শিওল হিসেবে বলা হয়েছে। Psalm ৮৮:১১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে অ্যাবাডন গোরস্থান আর পাতালপুরীর সাথে সম্পর্কিত।

- Advertisement -

Job ২৬:৬ অনুচ্ছেদে অ্যাবাডনকে শিওলের সাথে সম্পর্কিত বলা হয়েছে। পরবর্তিতে Job ২৮:২২ এ অ্যাবাডন ও মৃত্যুকে একত্রে ব্যাক্তিরুপে প্রকাশ করা হয়েছে।

REVELATION ৯:১০ এও অ্যাবাডনকে অ্যাবিস, বা নরকের অতল গহ্বরের শহরের রাজা হিসেবে বলা হয়েছে ও ব্যাক্তিরুপে প্রকাশ করা হয়েছে। রেভেলেশনে আরো বলা হয়েছে, গ্রীক নাম অ্যাপোলিয়ন সম্ভবত গ্রীক মহামারী ও ধ্বংসের দেবতা অ্যাপোলো এর নামানুসারে ডাকা হয়।

এবার আসুন অ্যাবেজেথিবো’র দিকে। নাম শুনে অদ্ভুত লাগছে না? Abezethibou কে বলা হয় One-winged DEMON বা এক ডানা বিশিষ্ট শয়তান। তারা আবাস লোহিত সাগরে, আর তাকে মোজেস বা মুসার চিরশত্রু বলা হয়।

সোলেমনের টেস্টামেন্টে আছে, অ্যাবেজেথিবোর নাম ছিল অ্যামেলথ। সে স্বর্গের সবচেয়ে উচু স্তরে বাস করত। বর্নিত আছে যে, মোজেস জাদুর খেল দেখানোর জন্য ফারাও এর সামনে গিয়েছিল, আর পরে ঈশ্বরপ্রদত্ত জাদুর ক্ষমতার মালিক সে নয় বলে অস্বীকৃতিও জানিয়েছিল। অ্যাবেজেথিবো সেই সময় ফারাওকে ফুঁসলিয়ে ইস্রায়েলীয়দের তাড়া করে দেশান্তর করতে মিশরীয়দের উস্কে দিয়েছিল।

আরো কথিত আছে, যখন মিশরীয়দের তাড়া খেয়ে মোজেস ও তার অনুসারীরা লোহিত সাগরের সামনে এসে পড়ে। তখন ইশ্বরের আদেশে লোহিত সাগর ভাগ হয়ে যায় এবং মোজেস ও তার অনুসারীরা সেই পথে পালিয়ে যায়। কিন্তু লোহিত সাগর ফারাও বাহিনীর মাথায় ভেঙ্গে পড়ে ও ডুবিয়ে দেয়। যখন লোহিত সাগর ফারাও বাহিনীকে ডুবিয়ে দেয়, তখন শাস্তি হিসেবে অ্যাবেজেথিবোর এক ডানা ভেঙ্গে দেয়া হয় ও বাতাসের তৈরি একটা পিলারের গায়ে বেঁধে রাখা হয়। পরবর্তিতে এফিপ্পাস নামক অ্যাবেজেথিবো এর সঙ্গী ডেমন এসে তাকে উদ্ধার করে রাজা সোলেমনের কাছে নিয়ে যায়। অ্যাবেজেথিবোকে পিলারের থেকে উদ্ধারের শাস্তি হিসেবে রাজা সোলেমন এফিপ্পাস ও অ্যাবেজেথিবোকে আবার এক পিলারের সাথে বেঁধে রাখেন ও সময়ের শেষ পর্যন্ত এ শাস্তি বলবৎ রাখার নির্দেশ দেন।

বিশ্বাস অবিশ্বাসের প্রশ্ন তুলে দয়া আর্টিকেলটিকে খাটো করবেন না। কারন এগুলো সবই মিথোলজির কথা। একবিংশ শতাব্দিতে মিথোলজির সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তোলাটাই যেন কেমন শোনায়। তবে সে যাই হোক না কেন, শেয়ার না করলে আপনার উপরে ডেমন ছেড়ে দেয়া হবে। সিদ্ধান্ত আপনার। :-p

মন্তব্য
লোডিং...