এবার পুরো পৃথিবী বাংলায়

৮ হরর মুভির গল্প- লেখাটি দুর্বল চিত্তের পাঠকদের জন্য নয়

1 2,699

- Advertisement -

hitfix.com

- Advertisement -

এই লেখাটি পড়ার সময় না থাকলে, শুনতে পারেন এর অডিও ভার্সন। ক্লিক করুন নিচের প্লে-বাটনে।

ভর দুপুরে টিনের চালে ভূতে ঢিল ছোঁড়ে …রাতের অন্ধকারে ঝাঁকে ঝাঁকে ভূতেরা নূপুর পড়ে নৃত্য করে …বট গাছে ভূত থাকে …এরকম কত শত ভূতের গল্প, কত পেত্নীর কথা শুনে আমাদের ছোটবেলা কেটেছে । ভূতের গল্প শুনে রাতে একা একা ঘুমাতে না পারা, জানালার পর্দা উড়লে ভয়ে চাদর দিয়ে মুখ ঢেকে ফেলা বা মায়ের কোলের মধ্যে মাথা লুকানো এসব ভয় মিশ্রিত মধুর স্মৃতি আমাদের সবার জীবনেই আছে কমবেশি। ভূত আছে কি নেই তা এখনও এক বিশাল রহস্য । ভূত থাকুক আর না থাকুক তবু আমরা এখনও ভূতের ভয় পাই ।

আর এখন ডিজিটাল যুগে শুধু ভূতের গল্প শুনে ভয় পাওয়ার দিন শেষ। এখন আমরা সিনেমার ভূত দেখে ভয় পাই। ভয়ে গলা শুকিয়ে ফেলি, চোখ ঢেকে ফেলি । তারপরেও হয়ত এই ভয়ের মধ্যেও আমরা একধরনের শ্বাস রোধ করা উত্তেজনা অনুভব করি যা আমাদের মধ্যে একধরনের লোমহর্ষক অভিজ্ঞতার সৃষ্টি করে । তাই ভয় পেলেও এই রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা লাভের জন্যই হয়ত এধরনের সিনেমা আমরা বার বার দেখি। চলুন এরকম কিছু ভয়ংকর ভূতের সিনেমার কথা জেনে নিই । যারা ভয় পেতে ভালবাসেন তারা উপভোগ করতে পারেন এই টান টান উত্তেজনার এবং ভয়ে চোখ বন্ধ করে ফেলার মত এই সিনেমাগুলি ।

১। BITE  (২০১৫)

অভিনয়ঃ  এল মা বেগোভিক, জর্ডান গ্রে

ছবির শুরুতে দেখা যায় কিছু তরুন তরুণী পার্টি করছে । এরপর তারা একটি জলাশয়ে গোসল করতে গেলে গল্পের নায়িকা চেসি ছোট একটা পোকার কামড়ে আক্রান্ত হয় । তার বাগদত্তার সাথে তার কিছু বিবাহত্তোর মানসিক সমস্যা দেখা দেয় । চেসির প্রিয় বান্ধুবী চেসির সাথে চরম বিশ্বাসঘাতকতা করে তার বাগদত্তাকে আপন করে পেতে চায় এবং চেসিকে তার বাগদত্তাকে পরিত্যাগ করার জন্য প্ররোচিত করতে থাকে । কিন্তু চেসি এই বিষয়ে অবগত নয় । এদিকে পোকার কামড়ে চেসির মধ্যে কিছু অদ্ভুত পরিবর্তন ঘটতে থাকে। সে তার চারপাশের সব কিছু আগে থেকেই দেখতে পেতে থাকে এবং শুনতে পেতে থাকে । ধীরে ধীরে সে মানুষ থেকে ভয়ংকর কিছুতে পরিণত হতে থাকে। অদ্ভুত ভয়ংকর সব ক্ষমতা তার মধ্যে দেখতে পেতে থাকে। সে নিজেকে সবার থেকে আলাদা করে ফেলে। প্রতিশোধ নিতে থাকে তার প্রতি হওয়া সব অন্যায়ের ।

আকস্মিক ভয়ংকর সব ঘটনা আপনাকে কিছুক্ষণের জন্য নিয়ে যাবে ভয়ংকর এক জগতে ।

২। Curse Of Chucky  (২০১৩)

অভিনয়ঃ ফিওনা ডৌরিফ, চ্যান্টাল কুয়েস্নেল, ব্র্যাড ডৌরিফ এবং আরও অনেকে ।

একদিন নিকাদের বাড়িতে রহস্যজনকভাবে পার্সেলে  হঠাৎ করেই এক কথা বলা চাকি পুতুল আসে । নিকা শারীরিক প্রতিবন্ধী । সে আর তার মা থাকে ।এই রাতের পর নিকার মাকে মৃত পাওয়া যায় । তার মৃত্যু হয় ছুরিকাঘাতে এবং এই মৃত্যুকে আত্মহত্যা বলে ধরে নেয়া হয় । এরপর থেকে ঘটতে থাকে সব অদ্ভুত ও লোমহর্ষক সব ঘটনা । চাকি পুতুলটি ধীরে ধীরে ভয়ংকর হয়ে উঠতে থাকে । এক এক করে সে সেই পরিবারের সবাইকে খুন করতে থাকে অভিনব এবং ভয়ংকরভাবে । সিনেমার প্রতি মুহূর্তে রয়েছে এক অজানা ভয় এবং পিলে চমকে দেয়ার মত সব ঘটনা ।

৩। Mirror  (২০০৮)

অভিনয়ঃ কিয়েফার সুথারল্যান্ড, পাওলা পেটন, এমি স্মার্ট এবং আরও অনেকে ।

একজন নিরাপত্তা কর্মী সাবওয়ে রেল স্টেশন ধরে দৌড়াতে থাকে এবং একটি রুমের মধ্যে প্রবেশ করে এবং সেখান থেকে আর পালাতে পারে না । এরপর সে সেই ঘরের সব আয়নাগুলোতে তার প্রতিবিম্ব দেখতে পেতে থাকে । হঠাত করেই তার প্রতিবিম্ব একটি আয়নার টুকরা দিয়ে তার গলা কেটে ফেলতে থাকে আর এভাবে আয়নার প্রতিবিম্বটি বাস্তবের  নিরাপত্তা কর্মীটিকে খুন করে ।

বেন একজন প্রাক্তন পুলিশ নিরাপত্তা কর্মীর চাকুরী নেয় । এরপর থেকে তার সাথে ঘটতে থাকে অদ্ভুত সব ভয়ংকর ঘটনা । এরপর থেকে সে তার আশেপাশের আয়নায় নৃশংস সব দৃশ্য এবং ছবি দেখতে থাকে এবং এক সময় বেন উপলব্ধি করতে পারে যে, আয়নার ভেতর থেকে এক ভয়ংকর অপশক্তি বাস্তব পৃথিবীতে প্রবেশের চেস্টা করছে ।

ছবির প্রতিটি দৃশ্যে রয়েছে টান টান উত্তেজনা এবং ভয়ের অনুভূতি ।

৪। Case-39 ( ২০০৯)

image source-internet
image source-internet

অভিনয়ঃ রিনি জেলওয়েগার , জডেল ফারল্যান্ড, আইয়ান ম্যাকশেন, ব্র্যাডলি কুপার এবং আরও অনেকে।

এমিলি একজন সমাজকর্মী । সে একজন ১০ বছর বয়সী শিশুকে তার নিষ্ঠুর বাবা মায়ের কাছে থেকে উদ্ধার করার জন্য নিযুক্ত হয় । এই মা বাবা তার শিশুকে ওভেন এর মধ্যে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করেছিল । এরপর এই অপরাধে তাদের গ্রেফতার করা হয় এবং শিশুটি এমিলির সাথে থাকতে চায় । এরপর থেকে শুরু হয় সব অস্বাভাবিক অদ্ভুত সব ঘটনা । কিছুদিন পর এমিলি আবিস্কার করে যে এই নিস্পাপ নিরীহ শিশুর মধ্যে লুকিয়ে আছে ভয়ংকর এক শয়তান । যার অনেক অপ ক্ষমতা এবং কালো শক্তি রয়েছে । এর প্রতিটি দৃশ্যে  লুকিয়ে রয়েছে অজানা আতংক এবং চাপা ভয় ।

৫। Ghost Rider  (২০০৭)

অভিনয়ে নিকলাস কেজ, ইভা মেন্ডেস এবং আরও অনেকে।

এটি একটি এ্যাকশন নির্ভর এবং নাটকীয় কাহিনী নির্ভর ভুতুড়ে সিনেমা । অনেক বছর আগে জনি ব্লেজ একজন যাদুকরের কাছে তার আত্মা বিক্রি করে দেয় তার বাবার জীবন বাঁচানোর জন্য । এরপর সে একজন অগ্নি মানবে পরিণত হয় যে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা র জন্য । যেখানে যেখানে খারাপ মানুষেরা বা শয়তানরা ঘুরে বেড়ায় সে সেখানে গিয়ে ন্যায় বিচারের প্রতিনিধি হিসেবে লড়াই করে । এভাবেই নাটকীয় ভাবে চলতে থাকে সিনেমার কাহিনী ।এক সময় জনি তার বিক্রিত আত্মা ফিরে পেতে চায় । সেজন্য তাকে এক অভিযান পরিচালনা করতে হয় যেখানে তাকে একটি নিস্পাপ ছেলেকে  উদ্ধার করতে হবে । কারণ এই ছেলের মাধ্যমে কালো যাদুর অধিকারীরা অপশক্তিকে জাগিয়ে তুলবে যা পৃথিবীকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেবে ।

৬। Mirror 2 ( ২০১০)

অভিনয়ে নিক স্ট্যাহল, ইমানুয়েলে ভোগিয়ার, ইভান জোন্স এবং আরও অনেকে ।

এটি মিরর ছবিটির সিকুয়াল । ম্যাক্স যে একটি ভয়াবহ দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে ফিরেছে সে একটি সংস্থাতে রাতের নিরাপত্তা কর্মী হিসেবে নিযুক্ত হয় ।এরপর থেকে সে ওখানকার স্টোর রুমের আয়নাতে সে একজন রহস্যময়ী তরুণীকে দেখতে পায় । এরপর থেকে ঘটতে থাকে সব অস্বাভাবিক ভয়ানক ঘটনা ।

৭। Child’s Play 2 ( ১৯৯০)

অভিনয়ে এলেক্স ভিন্সেন্ট , জেনি অগাটার, গেরিট গ্রাহাম এবং আরও অনেকে।

চার্লস লি রে এর  ধারাবাহিক খুনের দুই বছর পর সে তার আত্মা  চাকি নামে একটি পুতুলের ভেতরে রেখে দেয়। একটি কোম্পানি আবার সেই পুতুল বানানোর পরিকল্পনা হাতে নেয় এবং এতে করে চার্লস আবার তার শয়তানি অপ শক্তিকে জাগিয়ে তোলার সুযোগ পেয়ে যায়।

চার্লস এই আত্মা একটি মানুষের শরীরে ঢুকে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকে এবং এজন্য সে একটি ছেলে শিশুর শরীর বেছে নেয় এবং তাদের বাসায় বিভিন্ন ধরনের অস্বাভাবিক ভুতুরে ঘটনা ঘটাতে থাকে। শিশুটির বোন শিশুটিকে বাঁচানোর জন্য চেস্টা করে যেতে থাকে । এভাবেই অস্বাভাবিক এবং ভূতুড়ে ঘটনার মধ্যে দিয়ে ছবির কাহিনী এগিয়ে চলে।

৮। Women in Black  (২০১২)

অভিনয়ে ড্যানিয়েল রেডক্লিফ , সিয়ারান হিন্ডাস এবং আরও অনেকে ।

আরথার কিপ্স, একজন উকিল যে কিনা খুব সম্প্রতি তার স্ত্রীকে হারিয়েছেন; তাকে একটি প্রত্যন্ত গ্রামে একটি অদ্ভুত মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করার জন্য পাঠানো হয় । সে যখন গ্রামে পৌঁছে তখন দেখতে পায় এবং বুঝতে পারে গ্রামের লোকজন তার কাছে থেকে কিছু একটা ভয়ংকর গোপন ঘটনা লুকাচ্ছে । কিপ্স যখন তার একজন ক্লায়েন্ট এর বাড়িতে যায় বুঝতে পারে বাড়িটি ভূতুড়ে। এখানে একজন মহিলার আত্মা ঘুরে বেড়ায় কিছু একটা খুঁজে পাওয়ার জন্য ,এমন কিছু যা সে হারিয়ে ফেলেছে। এর মধ্যে গ্রামের শিশুরা কোন এক রহস্যময় কারনে আত্মহত্যা করে এবং কিছুদিন পর নিখোঁজ হয়ে যায় । এভাবে অদ্ভুত আর রহস্যে ঘেরা কাহিনী নিয়ে সিনেমা এগিয়ে চলে ।

লেখিকাঃ শারমীন আক্তার সেতু। আমি পেশায় একজন মনোবিজ্ঞানী । কবিতা লিখতে এবং পড়তে পছন্দ করি । মনোবৈজ্ঞানিক ফিচার লেখার সাথে যুক্ত আছি। তাছাড়াও অন্যান্য বিষয়েও লিখতে এবং জানতে পছন্দ করি । আমি এর আগে পরামর্শ .কম এ লেখার সাথে যুক্ত ছিলাম । এখন কিছু ইংরেজি সাইটে অনুবাদের কাজ করছি । আমার শখ ভ্রমন এবং গান গাওয়া । বাগান করতে পছন্দ করি এবং বিভিন্ন গাছ,ফুল্‌,ফল এবং নতুন নতুন জায়গার সাথে পরিচিত হতে ভাল লাগে।

মন্তব্য
লোডিং...