এবার পুরো পৃথিবী বাংলায়

৫টি প্রাচীন লেজেন্ড (কিংবদন্তী) যেগুলো সত্যিই ঘটেছিল

881

- Advertisement -

অন্য সবকিছুর উপরে মানবজাতি চমৎকার গল্পকার। কল্পনা প্রজ্বলিত শ্রুতি (মিথ) এবং কিংবদন্তি (লেজেন্ড) গল্পগুলো হাজার হাজার বছর ধরে মানুষকে রেখেছে প্রাণবন্ত। এইসব কিংবদন্তি কাহিনির অধিকাংশই সাধারণত মুখে মুখে পাড়ি দেয় প্রজন্মের পর প্রজন্ম। যাইহোক, দেখা গেছে কিছু প্রাচীন কল্পবিজ্ঞান এবং কিংবদন্তি গল্প নানান ঘটনাকে কেন্দ্র করেই সৃষ্টি হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, তাদের কয়েকটির শিকড় অতীতের বাস্তব ভূতাত্ত্বিক এবং জ্যোতির্বিদ্যাগত ঘটনাগুলির মধ্যে রয়েছে, যা আমাদের সম্ভাব্য বিপর্যয়কর বিপদগুলির সতর্কতা প্রদান করে, আমাদের অস্তিত্বকে হুমকির মুখে ফেলে এবং আমাদের গ্রহের আশ্চর্যতার দিকটি উন্মোচিত করে আধ্যাত্মিকভাবে আমাদের উন্নয়ন ঘটায়।

আসুন জেনে নেওয়া যাক বিশ্বের পাঁচটি প্রাচীন কিংবদন্তি আছে যেগুলি একরকম সত্য ঘটনার ভিত্তি আছে।

ছবিঃ কাল্পনিক গেস্ট স্টার

১. দ্য গেস্ট স্টার

“দ্য গেস্ট স্টার” – একটি প্রাচীন গল্প। খ্রিষ্টাব্দ ১০০৬ সালের এপ্রিল মাসে দিকে, এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ এবং এমনকি উত্তর আমেরিকায়ও, লোকেরা আকাশে “গেস্ট স্টার” দেখার বর্ণনা করেছেন। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা প্রাচীন গ্রন্থগুলি খুঁজে হারিয়ে যাওয়া রেকর্ড খুঁজে পেয়েছে যেখানে মহাজাগতিক ঘটনাটির উল্লেখ ও বর্ণনা করা আছে। তাদের মধ্যে ফার্সি বিজ্ঞানী ইবনে সিনা দ্বারা রচিত “কিতাব আল-শিফা” বা “বুক অফ হিলিং” এর নামও এসেছে। ইনি পশ্চিমে Avicenna নামেও পরিচিত। “কিতাব আল-শিফা” তে ইবনে সিনা একটি অস্থায়ী মহাজাগতিক বস্তুর নোট লিখেছিলেন, যেটি রঙ পরিবর্তন করে এবং ” স্ফুলিঙ্গ ছুড়ে ফেলে” হিসাবে এটি বিবৃত করা আছে, ও মিলিয়ে যায়। তিনি যা দেখেছিলেন তা হালকা সবুজ-হলুদ লাইটের মতো শুরু হয়ে বেগুনি রঙে চূড়ান্ত উজ্জ্বল হয়ে রইল। তারপর, এটি শেষ পর্যন্ত অদৃশ্য হওয়ার আগে সাদা রঙ ধারণ করেছিল।

দীর্ঘদিন ধরেই, “গেস্ট স্টার”-কে একটি ধূমকেতু হিসেবে ভাবা হচ্ছিল। কিন্তু বর্তমানে এটা নিশ্চিত হয়েছে যে মহাজাগতিক আশ্চর্য বস্তুটি ছিল একটি সত্যিকারের সুপারনোভা – একটি মহাজাগতিক বিস্ফোরণ যা প্রায় ৭২০০ বছর আগে ঘটেছিল কিন্তু যার দৃশ্যমান আলো পৃথিবীতে প্রথম সহস্রাব্দ ঘুরে ১০০৬ সালের দিকে পৌঁছায়। সুপারনোভাটি শুক্র গ্রহের থেকেও অনেক উজ্জ্বল ছিল এবং কয়েক সপ্তাব্যাপী দিনের বেলাতেও দৃশ্যমান ছিল। বর্তমানে, যদিও তার দৃশ্যমান তরঙ্গদৈর্ঘ্যটি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, তবুও নাসা’র Chandra X-ray Observatory-র মাধ্যমে সুপারনোভার উচ্চশক্তির অবশিষ্টাংশের প্রমান এখনও পাওয়া যায়।

ছবিঃ দ্য ক্রেটার লেক

২. দ্যা ক্রেটার লেক অ্যান্ড দ্য ব্যাটেল অফ গড’স

অরিগন মধ্যে ক্রেটার লেকের কিংবদন্তিকে ঘিরে প্রায় দুটি শক্তিশালী পৌরাণিক প্রাণী জড়িতঃ স্কেল, উপরের বিশ্বের প্রভু; এবং লাও, আন্ডারওয়ার্ল্ডের গড বা দেবতা। এই কিংবদন্তির থিমটি মূলত “ভালো বনাম মন্দ”-এর দ্বন্দ্ব নিয়ে রচিত।

নেটিভ আমেরিকান ক্লেমাথ উপজাতির লোকেরা বিশ্বাস করতেন যে অরিগনের ক্রেটার লেকটি আসলে মাজামা নামক একটি উঁচু পাহাড় ছিল। তখন এটি লাও এর অধিনে ছিল। এই নিয়ে আন্ডারওয়ার্ল্ডের দেবতার সাথে স্কেল, অর্থাৎ উপরিভাগের দেবতার যুদ্ধ লেগে যায় এবং মাজামা ও মাউন্ট শাস্তার মাঝামাঝি আকাশে প্রচুর আগুন ও গন্ধক উড়তে থাকে। লাও এই যুদ্ধে পরাজিত হয়েছিল, এবং তাদেরকে আবার আন্ডারওয়ার্ল্ডে ফিরে যেতে হয়েছিল। চিরদিনের জন্য তাকে কারাগারে আটকে রাখতে, স্কেল লাও এর উপরে মুখে পর্বতটিকে ধ্বসিয়ে দেন ও একটি সুন্দর নীল হ্রদ দিয়ে চিরদিনের জন্য মুখটি আটকে দেন।

কিংবদন্তিটি সত্য থেকে খুব দূরে ছিল না। যাইহোক, গর্তের হ্রদ রাগান্বিত গুহাদেবতাদের ফলে হয়নি বটে বরং ৭,৭০০ বছর আগে বিস্ফোরিত একটি আগ্নেয়গিরি মাউন্ট মাজামা থেকেই হয়েছে। ক্যাল্ডেরা নামক একটি বৃহৎ আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের সময় এই শিলাটি ছুটে যায়। পরবর্তীকালে ছোট অগ্ন্যুত্পাত সংঘটিত হয়ে ক্যাল্ডেরা ভরাট করার জন্য জল আসতে শুরু হয়েছিল, যা অবশেষে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের গভীরতম হ্রদে পরিণত হয়।

ছবিঃ গুগোল ম্যাপে রামের ব্রিজ

৩. রাম এর ব্রিজ (Adam’s Bridge)

হিন্দু মহাকাব্যে “রামায়ণ”, দেবতা রামের স্ত্রীকে অপহরণ করে শ্রীলঙ্কায় দ্বীপে ডেমোন কিংডমে নিয়ে যায়। হনূমানের মতো পুরুষদের সেনাবাহিনীর সাহায্যে রাম তাঁর ভাই লক্ষ্মণের সাথে ভারত ও শ্রীলঙ্কার মধ্যে একটি ভাসমান সেতু নির্মাণ করেন। পরবর্তিতে তিনি সেতুটি অতিক্রম করে সেনাবাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, সফলভাবে ডেমন কিং রাবণকে পরাজিত করেছিলেন এবং এভাবেই তার স্ত্রীকে উদ্ধার করেছিলেন।

- Advertisement -

যদিও এই বিস্তৃত কাহিনীগুলো কল্পনাপ্রসূত বিবরণ দিয়ে পূর্ণ বলে ধারণা করা হয়, তথাপিও পৌরাণিক রামের সেতুটি আসলেই বিদ্যমান। স্যাটেলাইট ইমেজে ভারত ও শ্রীলংকা মধ্যে প্রসারিত ডুব চুনাপাথরের সারি এবং বালির একটি একটি ৪৮ কিলোমিটারের লাইন দেখা যায়। এই সেতুটি দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত মানার উপসাগরকে উত্তর-পূর্বাঞ্চলের পক প্রণালী থেকে পৃথক করে। কয়েকটি শুষ্ক স্যান্ড ব্যাংক থাকায় অঞ্চলের সমুদ্রটি বেশ উষ্ণ, কিছু স্থানে মাত্র ১ থেকে ১০ মিটার গভীর। ১৫তম শতাব্দী পর্যন্ত ঘটিত ঝড়গুলি এই চ্যানেলকে গভীর করে তোলার জন্য এটি দায়ী ছিল। মন্দিরের রেকর্ডগুলি দেখে মনে হয় যে ১৪৮০ সালে চ্যানেলের মধ্যে সংঘটিত বিশাল একটি ঘূর্ণিঝড়  উঠতে শুরু করে এবং ঢেউয়ের নীচে ছড়িয়ে না যাওয়ার আগ পর্যন্ত রামা এর সেতু সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে সম্পূর্ণ রূপে অক্ষত ছিল।

ছবিঃ আটলান্টিসের কাল্পনিক ছবি

৪. আটলান্টিস

গ্রিক দার্শনিক প্লেটো প্রথম তাঁর লেখাগুলিতে আটলান্টিসের বর্ণনা দিয়েছিলেন। এই লেখনিতে উন্নতির শিখরে থাকা একটি সভ্যতার গল্প বলা হয়েছিল, যেটি দুঃখজনকভাবে ঢেউয়ের নিচে তলিয়ে গেছে এবং চিরতরে দুনিয়া থেকে হারিয়ে গেছে। বলা হয়ে থাকে, আটলান্টিস নামের এই মহান সভ্যতা এমন একটি জাতির দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল যারা ছিল অর্ধ-দেবতা ও অর্ধ-মানব। এবং তারা এমন একটি কল্পরাজ্যে বসবাস করতেন যেখানে তাদের ছিল বিশাল ও শক্তিশালী এক নৌবাহিনী। তবে, যখন তাদের ক্ষমতা ও প্রভাব শীর্ষস্থানে পৌঁছেছিল, তাদের ঘরবাড়ি – যেগুলো কয়েকটি বৃত্তের আকারে দ্বীপের উপরে অবস্থিত ছিল – এক সর্বগ্রাসী প্লাবনে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।

প্রাচীনকালের গল্পগুলোতে যেভাবে বলা হয়েছে, অ্যাটলান্টিস হয়তো তেমন কোন বাস্তব স্থান নয়, কিন্তু একটি বাস্তব দ্বীপের সভ্যতার কাহিনী অনেকের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারে। এটি নিয়ে প্রচুর বিতর্ক রয়েছে, কিন্তু বেশিরভাগ পুরাতত্ত্ববিদরা মনে করেন যে আটলান্টিসের কল্পকথা মিনোয়ান সাম্রাজ্যের পতনের উপর ভিত্তি করে থাকতে পারে।

গ্রীসের স্যান্তরিণী (Santorini) নামে এখন একটি দ্বীপপুঞ্জ আছে। কিন্তু বহু বছর আগে, এটি একটি দ্বীপ ছিল। প্রায় ৩৬৫০ বছর আগে, মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুত্পাতে দ্বীপটি ছড়িয়ে পড়ে এবং এটিকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যায়। আগ্নেয়গিরির বিশাল ম্যাগমা চেম্বারটি এত বিপর্যয়করভাবে খালি হয়ে গিয়েছিল এবং এতো দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছিল যে দ্বীপের মূল ভূখণ্ড সঙ্কুচিত হয়ে যায়। সাথে সুনামির সৃষ্টি হয় যেটি থেরা (দ্বীপটির নাম)-কে এজিয়ান সাগরে ডুবিয়ে দেয়। অগ্ন্যুত্পাতের ফলে বায়ুমণ্ডলে প্রচুর সালফার ডাইঅক্সাইড নির্গত হয় এবং এটি আবহাওয়াতে বছরের পর বছর ধরে অবস্থান করেছে। ফলে এখানে অসম্ভব ঠান্ডা ও ভিজা গ্রীষ্মের মত আবহাওার কারণে এই অঞ্চলের ফসল ব্যপকপভাবে ক্ষয়প্রাপ্ত হয়, যা মিনোয়ান সভ্যতার দ্রুত অবনতির প্রধান কারন বলে মনে করা হয়।

ছবিঃ কাল্পনিক নূহ এর নৌকা

৫. নূহ এর নৌকা

খ্রিস্টান, ইহুদী ও মুসলিম থিওলজি অনুসারে ঈশ্বর দীর্ঘদিন আগে পৃথিবী থেকে পাপ মুছে দিতে একটি বিশাল বন্যাকে বেছে নেন এবং নূহ ও তার অনুসারীদের বাঁচিয়ে রেখেছিলেন। ঈশ্বরের আদেশে, নূহ একটি নৌকা নির্মাণ করেছিলেন এবং প্রত্যেকটা প্রাণীকে জোড়ায় জোড়ায় তুলে তা পূর্ণ করেছিলেন। ঈশ্বর যখন পৃথিবীকে জল দ্বারা আচ্ছাদিত করেছিলেন তখন তিনি পৃথিবীর সবকিছুকে ডুবিয়ে দিয়েছিলেন। শুধুমাত্র নূহ, তার অনুসারী এবং অন্যান্য প্রাণীরা জাহাজে থাকায় বাঁচাতে সক্ষম হয়েছিল। পরবর্তিতে সেই সব লোকই দুর্যোগের পর গ্রহটি পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করেছিল।

যখন সবধরণের প্রাণীদের একটি নৌকায় তোলার কথা থাকে, সেখানে অনেকেরই তা সম্পূর্ণভাবে বিশ্বাসযোগ্য না হবারই কথা। কিছু বিশেষজ্ঞ বলছেন যে বাইবেলের মহাকাব্যিক বন্যা অনেক আগেকার কোন ঘটনার উপর নির্ভর করে লেখা থাকতে পারে। প্রথমেই যেই গল্পটি মনে আসে তা হচ্ছে গিলগামেশের কথা। প্রাচীন এই মহাকাব্যে ঠিক বাইবেলের সমতুল্য গল্পটিই অনুরূপভাবে লেখা আছে। মেসোপটেমিয়ার এই কাহিনীতে খ্রিস্টপূর্ব ৭ শতাব্দীতে অনেক দেবতারা একটি সুবিশাল বন্যার সৃষ্টি করতে চেষ্ট করেছিলেন যা বিশ্বকে ধ্বংস করবে। ইয়া (Ea) নামের এক দেবতা, একজন মানুষকে নিজের এবং নিজের বাকি পরিবারকে প্রাণনাশের হাত থেকে বাঁচার জন্য একটি নৌকা বানানোর জন্যও বলেছিলেন।

অনেক সংস্কৃতিতেই একই ধরনের বন্যা কাহিনীগুলি প্রচলিত আছে। কিন্তু এমন কোন কট্টর প্রমাণ নেই যে এই গল্পে উল্লিখিত মহাপ্লাবন কি আসলে ঘটেছে? পণ্ডিত ও বৈজ্ঞানিক বিশেষজ্ঞরা সাধারণত একমত যে পৃথিবীর জলবায়ু কখনোই এমন ছিল না এবং পৃথিবীর সমস্ত সিস্টেমকে আচ্ছাদন করার জন্য যথেষ্ট পানির মজুদও পৃথিবীতে নেই। যাইহোক, কিছু ভূতত্ত্ববিদ মনে করেন যে, কিংবদন্তী বন্যার ঘটনাটি প্রায় খ্রিস্টপূর্ব ৫০০০ বছর আগে সংঘটিত ব্ল্যাক সি’র প্রবল বন্যার থেকেও প্রভাবিত হতে পারে বলে মনে করা হয়।

শ্রুতিকাহিনী সুন্দর, উত্তেজনাকর গল্প এবং আমাদের অতীত এর সাহিত্য সম্পদ। যে প্রাচীন কাহিনীগুলি আমরা তালিকা ভুক্ত করেছি এবং অন্যান্য যেগুলি উল্লেখ করা হয়নি সবই আমাদের দূরবর্তী অতীতকে গুরুত্বপূর্ণ সংকেত প্রদান করতে পেরেছে। এবং এই সংকেতগুলি ভূতাত্ত্বিক ও জ্যোতির্বিদ্যা সংক্রান্ত ঘটনার সম্পর্কে আমাদের বৈজ্ঞানিক ও ঐতিহাসিক জ্ঞানের অভাব পূরণে সহায়ক এবং গুরুত্বপূর্ণ ছিল যা পৃথিবীর প্রাচীনযুগে সংঘটিত হয়েছিল। তাই, আমরা নিরাপদেই বলতে পারি যে কয়েকটি গল্প কেবল প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে প্রবাহিত হয় তা নয়; তারা সত্যও হতে পারে।

নিচে কমেন্টে লিখে ফেলুন এই আর্টিকেলটির ব্যাপারে আপনার মতামত।

আর লাইক করুন বাংলাহাব-এর ফেইসবুক পেজ ও সাথেই থাকুন। হাজারও ক্লিকবেইট ও অশ্লীল সাইটের ভীড়ে একমাত্র বাংলাহাব-ই আপনাকে পরিচ্ছন্ন ও তথ্যমূলক কন্টেন্ট বাংলায় দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। বিশ্বাস না হলে আমাদের সাইটটি ঘুরেই দেখুন। ধন্যবাদ।

SOURCES:

  1. http://www.iflscience.com/environment/six-ancient-legends-that-are-based-on-real-events/all/
  2. http://www.smithsonianmag.com/science-nature/ten-ancient-stories-and-geological-events-may-have-inspired-them-180950347/
  3. http://news.nationalgeographic.com/2016/04/160427-lost-supernova-sighting-sn1006-arab-astronomy/
  4. https://www.nasa.gov/mission_pages/chandra/multimedia/tapestry.html
  5. https://pubs.usgs.gov/fs/2002/fs092-02/
  6. https://www.newscientist.com/blog/space/2007/09/bridge-built-by-monkeys.html
  7. https://en.wikipedia.org/wiki/Adam%27s_Bridge
  8. http://www.smithsonianmag.com/science-nature/evidence-for-a-flood-102813115/?no-ist 
মন্তব্য
লোডিং...