এবার পুরো পৃথিবী বাংলায়

দেশে দেশে ফুড ফেস্টিভ্যাল

207

- Advertisement -

কোনো এক নীরব সন্ধ্যায় আপনি ফুটপাত ধরে হেঁটে চলেছেন।খিদের চোটে পেটে একসাথে বাইশটা ছুঁচো ফুটবল খেলছে!একদিকে চারপাশে দামি দামি রেস্তোরাঁয় থরে থরে সাজানো চাইনিজ-থাই-ইন্ডিয়ান-মোগলাই খাবারের রকমারি বাহার,অন্যদিকে আপনার মানিব্যাগে স্রেফ কয়েকটা ময়লা নোট আর সাথে দুটো মাছি মরে পড়ে আছে? আপনার মনে হচ্ছে এ জীবন রেখে আর কি করবেন? একসাথে চল্লিশটা ঘুমের ওষুধ কিনতে ফার্মেসির দিকে হাটি হাটি পা পা করে এগিয়ে চলেছেন?

থামুন! ভুলেও এ কাজ করবেন না!জীবনে অন্তত কোন একটা ফুড ফেস্টিভ্যালে যোগ না দিয়ে মরে যাওয়ার মতো বোকামি কিছুতেই করা উচিত নয়!

হরেক রকম উৎসবই তো প্রচলিত পুরো বিশ্বজুড়ে। মানুষের প্রধান মৌলিক চাহিদা, খাদ্য নিয়েও যে উৎসব হবে, সেটা খুব একটা বিচিত্র কিছু নয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক বিশ্বের সেরা কিছু ফুড ফেস্টিভ্যাল সম্পর্কে।

পিৎজা উৎসব, ইতালি 

পিৎজা উৎসব, ইতালি

পিৎজা কার না প্রিয়? জনপ্রিয় এ খাবারটির জন্ম ইতালির নেপলস শহরে।প্রতিবছর সেপ্টেম্বরে এ খাবারটিকে ঘিরে নেপলস শহরে অনুষ্ঠিত হয় জমকালো পিৎজা উৎসব। সপ্তাহব্যাপী চলা এ উৎসবে পৃথিবীর নানাপ্রান্ত থেকে যোগ দেন অগণিত পিৎজাপ্রেমী। পিৎজা-ই-পাস্তা ইতালিয়ানা পিৎজানিউ নামের দুটি ম্যাগাজিনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় ওয়ার্ল্ড পিৎজা চ্যাম্পিয়নশিপ। সারা পৃথিবী থেকে আসা পিৎজেইরা (যারা পিৎজা বানায়) দের সাথে স্থানীয় পিৎজেইরাদের সম্মিলনে জমে ওঠে প্রতিযোগিতা। এছাড়াও ব্যবস্থা থাকে পিৎজা তৈরির বিভিন্ন ওয়ার্কশপের।সপ্তাহব্যাপী এ উৎসবের শেষদিনে প্রতিযোগিতার ফল ঘোষণা করা হয় দর্শনার্থীদের ভোট ও বিচারকদের মতামতের সম্মিলনে। এ উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ হচ্ছেন মিস ইতালিয়া। বিজয়ী প্রতিযোগীকে মুকুট পরিয়ে দেন তিনি। অজস্র রকমের পিৎজার চোখ ধাঁধানো রূপ-রস-গন্ধে যদি আপনি দু-একবার অজ্ঞান না হয়ে পড়েন, তবে আপনার কোনভাবেই নিজেকে পিৎজাপ্রেমী বলে দাবি করা ঠিক হবে না!

তরমুজ উৎসব, অস্ট্রেলিয়া 

তরমুজ উৎসব, অস্ট্রেলিয়া

তীব্র দাবদাহের দিনে অফিস থেকে বাড়ি ফিরে ফ্রিজটা খুলতেই যদি দেখেন পিরিচে সুন্দর করে কেটে সাজিয়ে রাখা হয়েছে টকটকে লাল তরমুজ, আনন্দে খানিকটা নেচে নিতে ইচ্ছে করে সবারই! আপনার প্রিয় ফলের তালিকায় যদি তরমুজ থেকে থাকে, তবে তরমুজ উৎসবের খবর আপনাকে আনন্দ দেবেই! অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেন শহর থেকে প্রায় তিনশ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত চিনচিলা শহর। অস্ট্রেলিয়ার মোট তরমুজের প্রায় ২৫ শতাংশ আসে মেলন ক্যাপিটাল বলে খ্যাত এই শহর থেকেই। প্রতি দুই বছরে একবার এই শহরে অনুষ্ঠিত হয় তরমুজ উৎসব। বিভিন্ন জায়গা থেকে আগত পর্যটকরা অংশ নেন এই উৎসবে। মেলন স্কিইং, মেলন বিচ পার্টি, মেলন চ্যারিয়ট রেইস (রথ প্রতিযোগিতা), কনসার্টসহ হরেকরকম বিনোদনমূলক ব্যবস্থা থাকে দর্শনার্থীদের জন্য।

আর গলায় এসে না ঠেকা পর্যন্ত ইচ্ছেমতো তরমুজ খেতে থাকার ব্যবস্থা? সেটাও কি বলে দিতে হবে!

মাশরুম উৎসব, যুক্তরাষ্ট্র

মাশরুম উৎসব, আমেরিকা

- Advertisement -

মাশরুম ফ্রাই! প্রথমবারের মতো খেয়ে কেউ বুঝতেই পারবে না যে এটি মাংস নয়, একপ্রকার সবজি! অত্যন্ত সুস্বাদু অথচ পুষ্টিকর এই সবজির প্রতি ভালোবাসা থেকে ১৯৮৬ যুক্তরাষ্ট্রের পেনিসিলভানিয়ার একদল উৎসাহী তরুণ কেনট স্কয়ারে আয়োজন করে মাশরুম ফেস্টিভ্যালের।অত্যন্ত ক্ষুদ্র পরিসরে আয়োজিত সেই মাশরুম ফেস্টিভ্যালই কালের বিবর্তনে এখন হয়ে উঠেছে বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় ফুড ফেস্টিভ্যাল। যুক্তরাষ্ট্রের ৬৫ শতাংশ মাশরুমের জন্ম হয় পেনিসিলভানিয়াতে। মাশরুম ক্যাপিটাল অব দ্যা ওয়ার্ল্ড  বলে খ্যাত এই পেনিসিলভানিয়ার কেনট স্কয়ারে অনুষ্ঠিত এই মাশরুম ফেস্টিভ্যাল আপনার পিলে চমকে দেয়ার জন্যে যথেষ্ট। সুবিশাল কর্মযজ্ঞ কত সুন্দরভাবে সম্পন্ন হচ্ছে তা নিজের চোখে না দেখলে হয়তো বিশ্বাস হবে না কারোই।টানা দুদিন ধরে চলে এই উৎসব। সারা দেশের সমস্ত মাশরুমপ্রেমী উপস্থিত হন কেনট স্কয়ারে। আয়োজনটির মূল আকর্ষণ হচ্ছে ন্যাশনাল ফ্রাইড মাশরুম ইটিং চ্যাম্পিয়ানশিপ , ২ মাইল পর্যন্ত স্থানীয় মাশরুম খামারগুলো হেঁটে হেঁটে ঘুরে দেখা, অনভিজ্ঞ রাঁধুনির যেকোনো ধরনের মাশরুমের আইটেম তৈরি করা , মাশরুম সংক্রান্ত ওয়ার্কশপ, কমিউনিটি প্যারেড ইত্যাদি। ২০১৭ সালের মাশরুম উৎসবে প্রায় এক লক্ষ মাশরুমপ্রেমী উপস্থিত ছিলেন! মাশরুম উৎসব থেকে যা আয় হয় তা স্থানীয় কিছু অলাভজনক প্রতিষ্ঠানে দান করে দেয়া হয়। এ বছর সেপ্টেম্বরের ৮-৯ তারিখে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ৩৩তম মাশরুম ফেস্টিভ্যাল।

অমলেট উৎসব, ফ্রান্স

অমলেট উৎসব, ফ্রান্স

অমলেট, সকালের নাস্তায় অনেকের কাছেই একটি অপরিহার্য উপাদান। বিশেষ করে শুক্রবারের সকালে গরম গরম ঘিয়ে ভাজা পরোটার সাথে একটা অমলেটের মতো খাসা নাস্তা যেন আর হতেই পারে না বাঙালিদের জন্য। মাঝে মধ্যে ডবল অমলেটও খায় অনেকে। কিন্তু যদি বলা হয় একসাথে ১৫০০০ ডিমের অমলেট খাওয়ার কথা? কি, চোখ কপালে উঠে গেল তো?

ফ্রান্সের ব্যাসিয়াস শহরে প্রতিবছর ইস্টারের সময় অনুষ্ঠিত হয় এই পাগলাটে কাণ্ড! হ্যাঁ, পাগলাটেই বটে!প্রতি বছর ইস্টারের সময় এই উৎসবে প্রায় হাজার দশেক লোক অংশ নেয়। চার মিটারের একটি ফ্রাইং প্যানে চল্লিশজন রাঁধুনি মিলে তৈরি করা হয় ১৫০০০ ডিম দিয়ে তৈরি সুবিশাল অমলেট! এটাই তাদের ঐতিহ্যবাহী উদযাপন!

তবে এই উদযাপনের পেছনের ইতিহাস বেশ মজার! জনশ্রুতি অনুযায়ী, সম্রাট নেপোলিয়ন এবং তার সেনাবাহিনী যখন ফ্রান্সের দক্ষিণে অভিযান পরিচালনা করছিলো, তখন তারা ব্যাসিয়াস শহরের কাছাকাছি একটি গ্রামে রাত্রি যাপনের জন্য ক্যাম্প করার সিদ্ধান্ত নেয়।নৈশভোজে নেপোলিয়নকে স্থানীয় এক আমন্ত্রণকারী অমলেট খেতে দেন। সেই অমলেট নেপোলিয়নের কাছে এতোটাই সুস্বাদু মনে হয় যে, তিনি সেই গ্রামের লোকদের সেখানকার সব ডিম সংগ্রহ করে পরের দিন তার সেনাবাহিনীর জন্য একটি বিশাল অমলেট প্রস্তুত করার আদেশ দেন। তখন থেকেই ইস্টারের সময় সেই গ্রামের গরিব-দুঃস্থ মানুষদের অমলেট খাওয়ানোর বিষয়টি চালু হয়। এখন এটি বিশ্বব্যাপী ভ্রাতৃত্ব, বন্ধুত্ব, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি বিনিময়ের প্রতীকে পরিণত হয়েছে।

পুটিন উৎসব

পুটিন? সে আবার কী? নামটা অপরিচিত মনে হচ্ছে?

পুটিন উৎসব, কানাডা

আমাদের কাছে অপরিচিত মনে হলেও, কানাডাবাসীর কাছে কিন্তু নামটা মোটেও অপরিচিত নয়! কানাডার খুবই জনপ্রিয় একটি খাবার পুটিন। এমনকি অনেকে একে কানাডার ‘জাতীয় খাবার’ নামেও ডেকে থাকেন। ফ্রেঞ্চ ফ্রাই আর চিজ কার্ডের মিশেল, সাথে উপরে ছড়িয়ে দেয়া বাদামি আভার ঘন গ্রেভির সমন্বয়ে তৈরি এই খাবার যে কারো জিভে জল আনতে বাধ্য করবে!বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে দিতে একটু একটু করে পুটিন পেটে চালান করা , এটা বোধহয় কানাডিয়ানদের জাতীয় অভ্যাস!

প্রতিবছর মে নাগাদ কানাডার অটোয়ায়  অনুষ্ঠিত হয় পুটিন উৎসব। ২-৩ দিন ধরে চলে উৎসব। অসংখ্য পুটিন প্রস্তুতকারক অংশ নেন এই উৎসবে। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে চলতে থাকে সুবিশাল ভোজ উৎসব! বিভিন্নরকম ঐতিহ্যবাহী পুটিনের রেসিপি উপস্থাপন করা হয়।পুটিন তৈরি সংক্রান্ত বিভিন্ন ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়। এ উৎসবের অন্যতম আকর্ষণ হলো পুটিন খাওয়ার প্রতিযোগিতা।প্রচুর দর্শনার্থী এতে অংশ নেয়। এছাড়াও বিনোদনমূলক ব্যবস্থা হিসেবে ফেইস পেইন্টিং সহ নানাকিছুর আয়োজন তো আছেই!

এছাড়াও পুরো বিশ্বজুড়ে আরো নানান রকমের ফুড ফেস্টিভ্যাল অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।ভোজনরসিকদের তো সেসব নাম শুনলেই জিভে জল চলে আসার কথা! “বাঁচার জন্য খাওয়া নয়,বরং খাওয়ার জন্য বাঁচা” নীতিতে যারা বিশ্বাসী, অন্তত দু-একটা ফুড ফেস্টিভ্যালে অংশ না নিয়েই মারা গেলে তাদের আত্মা কিন্তু মোটেও শান্তি পাবে না!

 

 

মন্তব্য
লোডিং...