এবার পুরো পৃথিবী বাংলায়

আয়তন ও ক্ষেত্রফল বিভ্রান্তি

আয়তন ও ক্ষেত্রফল বিভ্রান্তি

130

আয়তন বলতে বোঝায় কোনো ত্রিমাত্রিক বস্তু যত টুকু জায়গা জুড়ে অবস্থান করে। আর ক্ষেত্রফল হলো কোনো দ্বিমাত্রিক বস্তু যে পরিমাণ  জায়গা  দখল করে অবস্থান করে।

ছোট বেলা থেকেই তো গণিত বইয়ে পড়ে এসেছি ক্ষেত্রফল= (দৈঘ্য*প্রস্থ) বর্গ একক

য়তন = (দৈঘ্য*প্রস্থ*উচ্চতা) ঘন একক

কখনো কি এটা ভেবে দেখেছি যখন কোনো স্থানের পরিমাপ পড়ছি তখন সেটা আয়তন নাকি ক্ষেত্রফলে লেখা?   বর্গ কি.মি./ বর্গ মি.ইত্যাদি বর্গ এককে নাকি ঘন এককে  লিখা? বিশেষ করে সমাজ বইগুলোতে আমরা স্থানের পরিমাপের ক্ষেত্রে আয়তন এবং  একক বর্গ এককে পড়ে আসছি ছোট বেলা থেকে। প্রথমত আয়তনের এককে বর্গ একক এর ব্যবহার ভুল।  এখন কি ধরে নেবো আমাদের সমাজ বইগুলো ভুল ছিল? আর ব্যাপারটা যেহেতু গাণিতিক তাই এখানে উপযুক্ত কারণ ছাড়া আমরা কোনোটিকেই সম্পূর্ণ ভুল বলতে পারি না।

অনেকের ব্যাপারটা নিয়ে বিভিন্ন রকম মন্তব্যও রয়েছে। যেহেতু  ক্ষেত্রফল হলো দ্বিমাত্রিক কোনো বস্তুর অবস্থান এবং আয়তন হলো কোনো ত্রিমাত্রিক বস্তুর অবস্থান। এখন প্রশ্ন আসে দেশ কি দ্বিমাত্রিক নাকি ত্রিমাত্রিক?

কারো কারো মতে কোনো স্থানের ক্ষেত্রে আয়তন না বলে ক্ষেত্রফল বললেইতো হলো। কিন্তু এতো দিন যে আমরা পড়ে আসছি সেটা কি সম্পূর্ণ ভুল? এই বিষয়টি নিয়ে “চমক হাসান” এর মন্তব্য হলো “আমরা যদি চিন্তা করতাম, একটি দেশের উপরে কতখানি জায়গা জুড়ে বায়ুমন্ডল আছে, সেখানে আয়তন ব্যবহার করা যেত। কিন্তু আমরা তো তা করি না। আমরা দেখি তার পৃষ্ঠদেশ কতখানি জায়গা জুড়ে আছে। পৃষ্ঠ বা তল দ্বিমত্রিক সুতরাং এখানে ক্ষেত্রফল শব্দটা ব্যবহার করাই শ্রেয়।” সেই ক্ষেত্রে সর্বপ্রথম আমাদের বইগুলো পরিবর্তন করা প্রয়োজন ।      

আবার অন্য দিকে কারো মতে একটি দেশের সরাসরি দৈঘ্য, প্রস্থ গুণ করে ক্ষেত্রফল বের করা সম্ভব নয়। কারণ কোনো দেশের ভূখন্ড বলতে ভূমির অভ্যন্তরীণ, ভূমির সাথে বায়ুমন্ডল, আকাশ সীমানাও রয়েছে। এই ক্ষেত্রে ক্ষেত্রফল বলার চেয়ে আয়তন বলাই শ্রেয়। তাহলে বর্গ এককের স্থানে ঘন একক লিখলেই কি সমস্যার সমাধান হয়ে যায়?
না তাও হয় না। কারণ আকাশ সীমানা সহ মোট ভূখণ্ড ধরা হলেও প্রকৃত পক্ষে হিসাবের সময় উচ্চতা হিসাব করা হয় না। যদি উচ্চতা হিসাব করতে হয় তাহলে উচ্চতা কত ধরা হবে? যদি শূন্য ধরা হয় তাহলে সূত্র অনুযায়ী গুণ করার পর ফলাফল শূন্যই আসে। তাই উচ্চতা বাদ দিয়েই হিসাব করা হয়। আর যেহেতু আকাশ সীমানা ধরে  হিসাব করা হয় না তাহলে ধরে নেওয়া যায় এটি দ্বিমাত্রিক। সুতরাং দ্বিমাত্রিক হিসাবে আয়তন ব্যবহৃত হওয়ার কোনো রকম প্রশ্নই আসে না। আর যেখানে মাত্র দুটি রাশি গুণ করে ফলাফল বের করা হয় তার এককও বর্গ একক হিসেবেই প্রকাশ করা হবে এটাই স্বাভাবিক।   

তবে ইংরেজিতে ব্যাপারটা অনেকটা সহজ। কারণ ইংরেজিতে আমরা বলি “Area of a country”. আর একক হিসাবে square K.m./ m. কিন্তু বাংলাতে আমরা এর অর্থ ধরি আয়তন। অথচ ইংরেজিতে আয়তন শব্দটি আলাদা অর্থ (Volume) বহন করে।

ইংরেজিতে এই বিষয়টি নিয়ে কোনো রকম সমস্যা নেই। তাহলে বাংলায় কেন এই বিভ্রান্তি? সরাসরি ক্ষেত্রফল বললেই হলো।

আসলে এটা এমন একটা সমস্যা, যার কোনো প্রকৃত সমাধানও নেই। যেহেতু বাংলা ভাষাতে এটা আগে থেকে এভাবে চলে আসছে তাই এটি এখন সরাসরি ভুলও বলা যায় না, আবার ভুল বললে এর সঠিক কোনো সমাধান পাওয়াও কঠিন।   একটি সমাধান হতে পারে জাতীয় শিক্ষাক্রম পাঠ্যপুস্তক এর পরবর্তী  বইগুলো যদি সংশোধন করা হয় তাহলে অন্তত আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম এই শব্দের সঠিক ব্যবহারটা জানতে পারবে।         

আমরা এতো দিন বাংলাদেশের আয়তন ১,৪৭,৫৭০  বর্গ কিলোমিটার জেনে আসছি। এটাকে সংশোধন করে বাংলাদেশের ক্ষেত্রফল ১,৪৭,৫৭০ বর্গ কিলোমিটার লেখা যায়।     

মন্তব্য
লোডিং...